কওমী মাদরাসার লাইব্রেরী

  • মুফতি সুলতান মাহমুদ

লাইব্রেরী ইসলামী ইতিহাসের একটি অবচ্ছেদ্য অংশ৷ বাগদাদের ঐতিহাসিক বাইতুল হিকমাহর কথা আমরা জানি৷ পৃথিবির সব জ্ঞান সেখানে অনুবাদ করে আরবীতে রুপান্তর করা হয়েছিল৷ হালাকু খাঁ তা ধংস করে দেয়৷ পৃথিবীর বিখ্যাত সব আলেমদের ব্যাক্তিগত লাইব্রেরীই ছিল বিশালায়তনের৷ দেওবন্দ নদওয়ার লাইব্রেরীও অনুপম৷ প্রতিটি কওমী মাদরাসায় তাই বিশালাকারের লাইব্রেরী আছে৷ কিন্তু মোবাইলের আগমনে লাইব্রেরী তার পূর্বের জৌলুস হারিয়েছে৷ বেশিরভাগ মাদরাসার কুতুবখানা এখন বছরে একবার খোলা হয়৷ দরসী কিতাব ও তার শরাহ শুরুহাত ছাড়া বৈচিত্রপূর্ন কিতাবাদিও নেই৷ ছাত্রদের মোতায়লার গরজও নেই৷ সবাই ছুটছে যেন কোন আলেয়ার পিছে৷ কিন্তু জ্ঞানের কেন্দ্রভূমি প্রতিটি কওমী মাদরাসায় সমৃদ্ধ কুতবখানা থাকা উচিৎ৷ দরসী কিতাবের বাইরে উপকারী বিষয়ের বইপত্রের সংগ্রহ থাকা উচিৎ৷ ছাত্রদের জন্য কুতুবখানা থাকবে সদা উন্মুক্ত৷ তবে কুতুবখানার নাযিমকেও হতে হবে যোগ্য৷

মালিবাগ জামিয়ায় এমন কুতুবখানা আমরা পেয়েছিলাম৷ তখন কুতুবখানার নাযেম ছিলেন জীবন্ত কিংবদন্তি মাওলানা আহমদ মায়মূন দা,বা,৷ হযরতের কিতাবি রুচি প্রবাদতূল্য৷ খুঁজে খুঁজে পৃথিবির অভিনব সব কিতাব জমা করেছিলেন৷ নানা ধরনের কিতাব তো পেতামই৷ সাথে পেতাম হুজুরের চিন্তাদর্শন৷ হুজুর একসময় কতৃপক্ষের কাছে সামান্য ভাতা বৃদ্ধির দাবী করেছিলেন৷ কতৃপক্ষ তার ভাতা বৃদ্ধি না করে এক অবুঝ মাওলানাকে কুতুবখানার দায়িত্ব দিল৷ হুজুর আমাকে বলেছিলেন ওরা আমাকে কদর করল না৷ অচিরেই বুঝবে৷ তাই হলো৷ কিছুদিনের মাঝেই কুতুবখানা উজার হয়ে গেল৷ কোকিল আর পেঁচার পার্থক্য যারা করতে পারে না তাদের বাগান উজার হওয়াই স্বাভাবিক৷ মালিবাগেই যদি এই অবস্থা হয় অন্য জায়গায় আর কি হবে? আহলে ইলম নেই যারা আছেন তাদের কদর নেই৷ সব জায়গায় একিই হালত৷ জাতি গঠনে কে কাজ করবে? আজ সব হযরতরা গলায় শান দিয়ে সুরের ঝংকার সৃষ্টি করছেন৷ মোটা হাদিয়া৷ গাড়ী বাড়ী৷ সাথে আল্লামা জাতির কান্ডারী উপাধি তো আছেই৷ কারণ তাদের আছে শুহরত, কাঁচাটাকা৷ সুরের জন্য কিতাব পড়তে হয়না৷ গলা শানালেই চলে৷ তাই কুতবখানার কি প্রয়োজন? জাতি তো লাইব্রেরী ছাড়াই তাদের কান্ডারী পেয়ে গেছে৷ বরবাদে গুলিস্তা কেঁ লিয়ে একহি উল্লু কাফি হ্যায়, গুলিস্তা কে হার শাখ পে উল্লু বেইঠে হে, তো আনজামে গুলিস্তা কা কেয়া হোগা৷
আবেগের রাজ্য থেকে বাস্তবতায় ফিরুন৷ আহলে ইলম রাজ্যের আসন্ন অধঃপতন রোধে সোচ্চার হোন৷

লেখক: সিনিয়র মুহাদ্দিস, জামিয়া ইসলামিয়া আরাবিয়া বলিয়ারপুর

এ জাতীয় আরো সংবাদ

বাংলাদেশ থেকে আরও ইমাম-মুয়াজ্জিন নিতে কাতারকে অনুরোধ রাষ্টদূত জসীম উদ্দিনের

নূর নিউজ

কক্সবাজারে আটকে পড়া পর্যটকদের পৌঁছে দিবে পুলিশের নিজস্ব গাড়ি

নূর নিউজ

স্বাধীনতা দিবস ও মাহে রামাদান উপলক্ষে আল নূর কালচারাল সেন্টারের গুরুত্বপূর্ণ ৫ সিদ্ধান্ত

নূর নিউজ