চীন সরে যাওয়ায় বিটকয়েন উৎপাদনে প্রথমস্থানে যুক্তরাষ্ট্র

চীনকে পেছনে ফেলে যুক্তরাষ্ট্র বিটকয়েন মাইনিংয়ের জন্য বিশ্বের কেন্দ্রস্থল হয়ে উঠেছে। চীনে বিটকয়েন নিষিদ্ধ করার পর চালানো অভিযান কার্যকরভাবে এ শিল্পের চর্চা দেশটি থেকে দূর করেছে। ফলে এগিয়ে এসেছে যুক্তরাষ্ট্র। আজ বুধবার প্রকাশিত কেমব্রিজ সেন্টার ফর অলটারনেটিভ ফাইন্যান্স স্টাডির মতে, আগস্টের শেষে, আমেরিকা বিশ্বব্যাপী হ্যাশ হারের ৪৫ শতাংশ তাদের বলে দাবি করেছে। ডিজিটাল মুদ্রা আহরণের জন্য ব্যবহৃত কম্পিউটিং ক্ষমতার একটি পরিমাপ এই হ্যাশ রেট। এটি দেশটির এপ্রিল মাসের রেটের হিসাবের দ্বিগুণেরও বেশি।

চীনের আপেক্ষিক শেয়ারের আর্থিক ঝুঁকি নিয়ন্ত্রণের জন্য এ শিল্পকে হ্রাস করার পদক্ষেপ নেয় দেশটি। বিটকয়েনের ২০০৯-এর শুরুর প্রথম দিনগুলিতে, এশীয় দেশটি কয়লা এবং হাইড্রো প্লান্ট থেকে সস্তা বিদ্যুত সবচেয়ে বড় বিটকয়েন মাইনের ভিত্তি ছিল। এখন, মে মাসে ঘোষিত ক্রিপ্টোকারেন্সি বাজার দমনের বেইজিংয়ের তীব্র প্রচেষ্টা সফল হচ্ছে। বিটকয়েন খনিতে চীনের পর্যবেক্ষণকৃত অংশ কার্যকরভাবে শূন্যে পৌঁছেছে বলে কেমব্রিজ গবেষকরা খুঁজে পেয়েছেন। ২০১৯ সালের সেপ্টেম্বরে দেশটির হ্যাশ রেট ৭৫ শতাংশ -এর নিচে নেমে আসে। তখন ক্যামব্রিজ তথ্য সংগ্রহ শুরু করে। এই বছর এপ্রিল মাসে এটি ৪৬ শতাংশে নেমে গেছে।

চীনে এখনও গোপনে মাইনিংয়ের প্রবল সম্ভাবনা রয়েছে, তবে ভার্চুয়াল প্রাইভেট নেটওয়ার্কের মাধ্যমে এটি পরিচালিত হয়। কম্পিউটারগুলো অন্য দেশে আইপি ব্যবহার করে কাজ করছে। কেমব্রিজ গবেষণা অনুযায়ী, আয়ারল্যান্ড এবং জার্মানিতে হ্যাশ রেটের সাম্প্রতিক বৃদ্ধি সম্ভবত ভিপিএন বা প্রক্সি সার্ভার ব্যবহার করে চীনের মাইনিং শ্রমিকদের কাজের ফলাফল।

বিটকয়েন মাইনাররা বৈদ্যুতিক শক্তির জন্য গ্লোবাল স্ক্রাম্বেলে চীনের আইপি ব্যবহার করে না। মাইনিং শ্রমিকরা সস্তা বিদ্যুৎ চাইছেন এবং সরকারকে স্বাগত জানাচ্ছেন ভার্চুয়াল মুদ্রায় উন্নতির জন্য যা আবার রেকর্ড উচ্চতায় পৌঁছেছে। টোকেন গত বছরে ৩৭০ শতাংশেরও বেশি বেড়েছে প্রায় ৫৪৬৫০ ডলার। মোট বাজারমূল্যে যার দাম প্রায় ১ ট্রিলিয়ন ডলার।

কাজাখস্তানে, হ্যাশ রেটের অংশ আগস্ট মাসে ১৮ দশমিক ১ হারে বেড়েছে। গত এপ্রিলে যেটি ছিল ৮ দশমিক ২ শতাংশে। একই সময়ে রাশিয়ান শেয়ার ৬ দশমিক ৮ থেকে বেড়ে ১১ শতাংশ হয়েছে।
সূত্র : ব্লুমবার্গ

এ জাতীয় আরো সংবাদ

ট্রাম্পের ইউটিউব চ্যানেল স্থগিত

আনসারুল হক

যুক্তরাষ্ট্রে করোনায় দৈনিক মৃত্যুর সংখ্যা দ্বিগুণ হতে পারে:সিডিসি

আনসারুল হক

যুক্তরাষ্ট্র-চীন উত্তেজনার কারণ

আনসারুল হক