লকডাউনে ঘরে থাকছে না মানুষ, সড়কে বাড়ছে গাড়ির জটলা

নূর নিউজ: লকডাউনের মেয়াদ বাড়লেও মানুষকে আর ঘরে বন্দি রাখা যাচ্ছে না। সরকার চাইছে- মানুষ একটু ঘরে থাকুক, করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ কমে আসুক। আর তাই সংক্রমণের ঊর্ধ্বগতির রাশ টানতে দেশে ঘোষণা করেছে ‘সর্বাত্মক লকডাউন। অন্যদিকে সড়কে নেমে এসে লকডাউন অমান্য করছে সাধারণ মানুষ। কারণ, তাদের জীবন-জীবিকায় টান পড়েছে। এছাড়া তাদের সামনে বিকল্প নেই।

দিন যত যাচ্ছে রাজধানীর সড়কগুলোতে বাড়ছে গাড়ির জটলা। গণপরিবহন বন্ধ থাকলেও সড়ক এখন ব্যক্তিগত গাড়ির দখলে। অনেক সিগন্যালে আগের মতো গাড়ির দীর্ঘসারিও চোখে পড়ছে। বর্ধিত সাত দিনের লকডাউনের প্রথম দিন গতকাল বুধবার রাজধানীর মহাখালী, সাতরাস্তা, মগবাজার, কারওয়ানবাজার, ফার্মগেট, গুলশান ও উত্তরা এলাকা ঘুরে এমন চিত্র দেখা গেছে।

বোঝাই যাচ্ছে- লকডাউনের এক সপ্তাহ পর সাধারণ মানুষ এখন আর ঘরবন্দি থাকতে চাইছে না। জরুরি সেবার বাইরেও বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান, দোকানপাটও খুলতে শুরু করেছে। কর্মচঞ্চল মানুষের পদচারণায় ঢাকা যেন ফিরছে প্রকৃতরূপে। অ্যাপসভিত্তিক সেবা পাঠাও-উবারের সার্ভিস বন্ধ থাকলেও অ্যাপস ছাড়াই ব্যক্তিগতভাবে মোটরসাইকেল ও প্রাইভেটকার সার্ভিস চলছে। যার কারণে সড়কে আগের চেয়ে প্রাইভেটকার ও মোটরসাইকেল দেখা যাচ্ছে বেশি। কমে এসেছে পুলিশের তৎপরতাও। তল্লাশিচৌকিও তেমন দেখা যাচ্ছে না। সাধারণ মানুষের মাঝে স্বস্তঃস্ফূর্ততা না থাকায় প্রথম থেকেই লকডাউনে ঢিলেঢালাভাব ছিল। লকডাউন ঘোষণার দুদিন পর থেকেই রাজধানীতে ব্যক্তিগত গাড়ি, সিএনজিচালিত অটোরিকশা ও রিকশা চলাচল করতে শুরু করে। রাস্তায় মানুষের চলাচল বাড়ে। এক সপ্তাহ যেতে না যেতেই তা অনেক বেশি দৃশ্যমান।

দেশে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ও মৃত্যু ঊর্ধ্বমুখী হওয়ার কারণে প্রথম দফায় ৫ এপ্রিল সাত দিনের বিধিনিষেধ দেওয়া হয়। সেই বিধিনিষেধ মানতে সর্বস্তরের মানুষের ছিল সর্বোচ্চ অনীহা। এরই মধ্যে গত ১৪ এপ্রিল থেকে আবার সারাদেশে ‘সর্বাত্মক লকডাউন’ দেওয়া হয়। গতকাল শেষ হওয়া সেই লকডাউন আবার বেড়ে গড়ায় আরেক সপ্তাহে।

বিশ্লেষকরা বলছেন, জীবিকার ব্যবস্থা না করে মানুষকে এভাবে ঘরে আটকে রাখা যাবে না। মানুষের চলাচলে জোরপূর্বক বাধা সৃষ্টি করলে বিশৃঙ্খলা বাড়বে। কারণ যে মানুষের খাবার টাকা নেই তাকে জীবিকার সন্ধানে বের হতেই হবে। এ ছাড়া সামনে ঈদ। মানুষের ব্যস্ততা বাড়বে এটিও স্বাভাবিক। সে বিষয়েও সরকারের সুস্পষ্ট নির্দেশনা জরুরি।

 

এ জাতীয় আরো সংবাদ

আবরার ফাহাদ হত্যা মামলার রায় ২৮ নভেম্বর

নূর নিউজ

‘খালেদা জিয়াকে স্থায়ী মুক্তি দেওয়ার সুযোগ নেই’

নূর নিউজ

ষষ্ঠ-সপ্তম শ্রেণির ‘অনুসন্ধানী পাঠ’ না পড়ানোর নির্দেশ

নূর নিউজ