হাটহাজারীতে স্মরণীয় একটি দিন 

সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ মহামানব হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের জীবনী নিয়ে সুসজ্জিত ওয়েবসাইট “রাহমাতুললিল আলামিন ডটকমের” আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন হয়েছে গত আগষ্ট মাসের ১৯ তারিখে।

উপমহাদেশের অন্যতম ধর্মীয় বিদ্যাপীঠ দারুল উলুম মঈনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদ্রাসায় প্রতিষ্ঠানটির মহাপরিচালক আল্লামা ইয়াহইয়া সাহেব আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন ঘোষণা করে ওয়েবসাইটের সফলতা ও এই কাজের সাথে জড়িতদের জন্য মহান আল্লাহর কাছে দোয়া করেন।

এটি ছিল স্মরণীয় সময়। বিশ্ব মানবতার মুক্তির দূত হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের জীবনী নিয়ে ওয়েবসাইটের সূচনা যেমন আমাদেরকে আনন্দিত করেছে তেমনিভাবে হাটহাজারী মাদ্রাসায় আল্লামা ইয়াহইয়া সাহেবের আতিথেয়তা ও ভালোবাসা মুগ্ধ করেছিল। খাবারের আসরে আমাদের প্রধান পরিচালক মাওলানা ইউসুফ নূরের পাতে তেলেভাজা রূপচাঁদা মাছ তুলে দিতে দিতে আল্লামা ইয়াহিয়া বলছিলেন, মাওলানা, এটা খেয়ে দেখেন। আমাদের চিটাগাংয়ের রূপচাঁদা।

হাটহাজারী মাদ্রাসার মতো গুরুত্বপূর্ণ একটি প্রতিষ্ঠানের প্রধান ব্যক্তির এমন অতিথিপরায়ণতা আমাকে সত্যিই মুগ্ধ করেছিল। মাওলানা ইউসুফ নূর হাটহাজারীর কৃতিসন্তান। আল্লামা ইয়াহিয়া তার শিক্ষক। কতদিন পর দেখা। ছাত্র শিক্ষকের এমন অকৃত্রিম সম্পর্কের ধারাবাহিকতা কওমি মাদ্রাসার সৌন্দর্য আরো বাড়িয়ে তোলে।

ছাত্র ও শিক্ষকের আনন্দঘন সেই মূহুর্ত

আল নূর কালচারাল সেন্টার কাতারের নিবাহী পরিচালক ও কাতার ধর্ম মন্ত্রণালয়ের ইমাম মাওলানা ইউসুফ নূর স্বল্প সময়ের জন্য দেশে এসেছিলেন। সামাজিক ও ধর্মীয় কাজে নিজেকে ব্যস্ত রাখা এই মানুষটি দীর্ঘদিন ধরেই দেশে আসার ফুরসত খুঁজছিলেন। কিন্তু নানাবিধ ব্যস্ততায় আসতে দেরি হয়ে গেল। কিন্তু যে ক’টি উপলক্ষে নিয়ে এবার বাংলাদেশ সফর করেছেন তার সবকটি সুন্দরভাবে আয়োজিত হয়েছে। আলহামদুলিল্লাহ। যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য কয়েকটি হলো,সিরাত বিষয়ক ওয়েবসাইট উদ্বোধন, ঢাকায় বরেণ্য লেখক ও চিন্তাবিদদের মাধ্যমে নূর নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকমের আত্মপ্রকাশের অনুষ্ঠান ও দেশের বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ স্থানে ইলমি সফর।

আল্লামা ইয়াহিয়ার সঙ্গে মধ্যাহ্নভোজের পর আমরা চলে যাই হাটহাজারী মাদ্রাসার মহাপরিচালকের কার্যালয়ে। আমাদের পথ দেখিয়ে নিয়ে যাচ্ছিলেন স্বয়ং মহাপরিচালক। ওয়েবসাইটের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন হয় মহাপরিচালকের কার্যালয়ে। উদ্বোধন শেষে মাওলানা ইউসুফ নূরকে ওয়েব সাইট সম্পর্কিত বিভিন্ন দিকনির্দেশনা দেন আল্লামা ইয়াহিয়া। সেই সাথে ওয়েবসাইটের পরিচালনায় উপদেষ্টা হিসেবে কাজ করার সদয় সম্মতি জ্ঞাপন করেন।

রাহমাতুললিল আলামিন ডটকম এখন পর্যন্ত বাংলায় প্রদর্শিত হলেও ৪ টি ভাষায় মহামানবের গৌরবময় জীবন তুলে ধরার কার্যক্রম চলমান রয়েছে।

চারটি ভাষা আলাদা আলাদা বিভাগের মাধ্যমে পরিচালিত হবে। প্রতিটি বিভাগেই কাজ করবেন সংশ্লিষ্ট ভাষায় দক্ষ ও অভিজ্ঞ ব্যক্তিরা।

বিষয়গুলো আল্লামা ইয়াহিয়াকে জানাচ্ছিলেন মাওলানা ইউসুফ। তিনি শুনে খুব খুশি হলেন। যে মানুষটি পৃথিবীকে আলোকিত করে গেছেন, যার কারণে আলোকিত আমরা ও আমাদের সমাজ, যিনি সর্বপ্রথম নারীর অধিকার ও সম্মান প্রতিষ্ঠা করে গেছেন, যিনি ধনী-দরিদ্রের কোন পার্থক্য করেননি এবং করাটা অপরাধ হিসেবে বিবেচনা করেছেন সেই মহান মানুষটির জীবনী বাংলা ভাষায় এখনো অন্তরজালে সমৃদ্ধ নয়।

আল্লামা ইয়াহিয়া সাহেব যথেষ্ট সাহস দিলেন। পরামর্শ দিলেন। আল্লাহর দরবারে হাত তুলে মোনাজাত করলেন। সেদিনের স্মৃতি সম্বল করে এগিয়ে চলছে আমাদের কার্যক্রম।

আল্লাহর দরবারে ফরিয়াদ

মহাপরিচালকের কার্যালয় থেকে বের হয়ে আমি মাওলানা ইউসুফ নূরের চেহারায় কিছুটা অস্থিরতা লক্ষ্য করলাম। কিসের যেন তাড়া।

কিছু বুঝে ওঠার আগেই তিনি মাওলানা মীর ঈদরিস সাহেবসহ হাঁটা ধরলেন মাদরাসার মাকবারার দিকে। যেখানে ঘুমিয়ে আছেন আল্লামা শাহ আহমদ শফী, আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী ও আল্লামা নুরুল ইসলাম জিহাদী রহমাতুল্লাহি আলাইহিম। ইসলাম সমর্থিত পদ্ধতিতে মাকবারা জেয়ারত করলাম আমরা।

এছাড়াও মাদ্রাসায় প্রবেশের পূর্বেই আমরা হাটহাজারী সুপ্রসিদ্ধ নূর মসজিদ সংলগ্ন মাকবারা জিয়ারত করি। যেখানে ঘুমিয়ে আছেন হাটহাজারী মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা ও অন্যান্য মনীষীগণ।

নূর মসজিদ সংলগ্ন মাকবারা

জেয়ারত শেষে মাদসার বর্তমান শাইখুল হাদিস আল্লামা শেখ আহমদ সাহেবের কামরার দিকে ছুটলাম। হুজুর তখন মুতালাআ করছিলেন। মাওলানা ইউসুফ নূরকে দেখে খুবই আনন্দিত হলেন। যেন নিজের সন্তানকে কাছে পেয়েছেন। আতর বের করে গায়ে মাখিয়ে দিলেন। কী নিঃস্বার্থ ভালোবাসা ও স্নেহ। সে সময়টাতে মাওলানা ইউসুফ নূরের চেহারায় আমি এক ধরনের আবেগ লক্ষ্য করছিলাম। পরে অবশ্য জানতে পারলাম এর কারণ। আল্লামা শেখ আহমদ সাহেব মাওলানা ইউসুফ নূরের সরাসরি শিক্ষক এবং প্রিয় ছাত্রদের মধ্যে একজন। মাওলানা ইউসুফ নুর আল্লামা শেখ আহমেদ সাহেবের হাদিসের দরসের ছাত্র।

আল্লামা শেখ আহমদ সাহেবের সঙ্গে কথা হলো দীর্ঘক্ষণ। হুজুর আল নূর কালচারাল সেন্টারের খোঁজখবর নিলেন। পরামর্শ দিলেন। সতর্ক করলেন। আসার সময় মাওলানা ইউসুফ নূরের মাথায় হাত বুলিয়ে বিদায় জানালেন।

আল্লামা শেখ আহমদ সাহেবের কামরা থেকে বের হতেই হাটহাজারী মাদ্রাসার মুখপাত্র মাসিক মঈনুল ইসলামের নির্বাহী সম্পাদক মাওলানা মুনিরুল ইসলাম পত্রিকাটির কার্যালয়ে আমাদের স্বাগত জানান। সেখানে ভাবনার বিনিময় হয়। কথা হয় মন খুলে। আমাদের কার্যক্রমে সর্বাত্মক সহযোগিতার আশ্বাস দেন মাওলানা মনিরুল ইসলাম। সবমিলিয়ে মাওলানা মুনিরুল ইসলামের মেহমানদারিও মুগ্ধ করেছিল আমাদের।

হাটহাজারী মাদ্রাসার মহাপরিচালকের সুযোগ্য সাহেবজাদা ও মাদ্রাসার শিক্ষক মাওলানা শোয়েব আহমেদের আন্তরিকতা ও মুগ্ধ করেছিল আমাদেরকে। আমাদের প্রতিটি কার্যক্রমে এমনভাবে সহযোগিতা করেছেন যেন তিনি আমাদের পরিবারের সদস্য। অবশ্য পরিবার থেকে আলাদা করি-ই বা কিভাবে? যারা মানুষের কাছে ইসলামের সুমহান বার্তা পৌঁছে দিতে কাজ করছি তারা সকলেই একটি পরিবার বৈ কিছু নয়।

খুব বেশি পরিকল্পনা ছিল না সেই সফরকে কেন্দ্র করে। কিন্তু কাজ হয়েছে অনেক। এত অল্প সময়ে একসঙ্গে এতগুলো কাজ করা যায় সেটাই যেন শিখলাম মাওলানা ইউসুফ নূরের কাছ থেকে।

আমাদের নূর নিউজ পরিবারের কার্যক্রমে ব্যাপক উৎসাহ যোগান দিয়েছিল সেই সফর। যা এখনো অমলিন স্মৃতিতে। আল্লাহ আমাদের কার্যক্রম গুলো কবুল করলেই সবকিছু সার্থকতা।

লেখক, সুফিয়ান ফারাবী( বার্তা সম্পাদক, নূর নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম)

 

এ জাতীয় আরো সংবাদ

সুবিধাবঞ্চিত অসহায় মানুষের মাঝে আন-নূর হেল্পিং হ্যান্ডের খাবার বিতরণ

আনসারুল হক

শাহজালাল বিমানবন্দরে আরটি-পিসিআর ল্যাব বসাবে ৭ প্রতিষ্ঠান

নূর নিউজ

বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে চরমোনাই পীরের গৃহনির্মাণ সামগ্রী বিতরণ

নূর নিউজ